মঙ্গলবার, ১৮ Jun ২০২৪, ০৮:১১ পূর্বাহ্ন

News Headline :
শিবপুরে জাতীয় পুষ্টি সপ্তাহ উদ্বোধন রাজশাহীতে কোরবানিযোগ্য পশু সাড়ে ৪ লাখের বেশি দাম চড়া হবে নালিতাবাড়ী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দুই ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী নারী পাবনার সুজানগরে আনারস প্রার্থীর ভোট না করায় মোটরসাইকেল সমর্থকদের বাড়িতে হামলা ও ভাংচুর লুটপাট পাবনা গণপূর্ত অধিদপ্তর কয়েককোটি টাকার বিনিময়ে ২য় দরদাতা বালিশকান্ডের হোতাকে কাজ দেওয়ার অভিযোগ র‌্যাব কুষ্টিয়া ক্যাম্প এর অভিযানে ১টি দেশীয় ওয়ান শুটারগান উদ্ধার গাজীপুরে তিন উপজেলায় নির্বাচিত চেয়ারম্যানরা হলেন পবায় সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি গ্রেফতার পাবনায় অগ্রনী ব্যাংক কাশিনাথপুর শাখার ভোল্ট থেকে ১০কোটি টাকা লোপাট আটক ৩ জড়িত উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ পাবনার ঈশ্বরদীতে সর্বোচ্চ ৪২.৪ ডিগ্রি তাপমাত্রার রেকর্ড

কিশোরগঞ্জে কদর বেড়েছে ছাতার কারিগরদের

Reading Time: < 1 minute

মোঃ মিজানুর রহমান-কিশোরগঞ্জ নীলফামারী:
নব ঘনে আষাঢ় গগনে তিল ঠাঁই আর নাহিরে, ওগো আজ তোরা যাসনে ঘরের বাহিরে।’হ্যাঁ,পঞ্জিকার পাতা অনুযায়ী এখন বর্ষাকাল।যদিও এখন রোদ আর বৃষ্টির খেলা চলছে। করোনার আঁতুড়ঘরে অন্য ব্যবসায়ীরা অলস সময় পার করলেও বছরের অন্য সময় বসে থাকা ছাতার কারিগররা এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন। বর্ষাকালে আপামর জনসাধারণের চলাচলের একমাত্র পাথেয় বস্তুটির নাম হলো ছাতা।আর বর্ষাকাল শুরু থেকে ছাতার কারিগররা নীলফামারী কিশোরগঞ্জ উপজেলা শহর থেকে গ্রাম অঞ্চলে ঘুরে ঘুরে ছাতা মেরামত করছেন। এই ছাতা গ্রীষ্মেও যেমন দরকার তেমনি বর্ষাতেও এর প্রয়োজন আরও বেশি।তাই সারা বছর ঘরে তুলে রাখা ছাতার ছোট -খাটো, রোগ -বালাই সারছেন ব্যবহারকারীরা। রোদেলা তাপ বা বৃষ্টির ধারা থেকে মুক্তির জন্য ছোট এই বস্তর প্রয়োজনটা যে কত তা মৌসুমেই বলে দেয়। আগের আমলে কাঠের হাতলের ছাতা থাকলেও হাল আমলে ছাতার হাতল ও কাপড়ে বৈচিত্র এসেছে। ছোট্ট সাইজের ছাতা, স্কুল ব্যাগ, ভ্যানিটি ব্যাগ কিংবা প্যান্টের পকেটেও রাখা যায়। যত বৈচিত্রময় হোক ছাতা উল্টে গেলে, কাপড় ছিড়লে বা সেলাই খুলে গেলে ছাতা কারিগর ছাড়া কোনো উপায় নেই।বর্ষা মৌসুমে যেহেতু ছাতার ব্যবহার বেড়ে যায়, তেমনি কারিগরদের কাজের রেটও বেড়ে যায়। সদর ইউপি মুসা গ্রামের ছাতার কারিগর কাশেম আলী জানান, প্রতিটি জিনিসপত্রের দাম বেড়েছে। ফলে ছাতার কাপড়, হাতল, স্প্রিং, কামান প্রভৃতি জিনিসপত্র কিনতে হচ্ছে চড়া দামে। এই সময়টায় কিছু কাজ হয়। আর অন্য সময় বিকল্প পেশায় জীবিকা নির্বাহ করতে হয়। প্রতিদিন গ্রামাঞ্চল ঘুরে গড়ে ৫শত থেকে ৮শত টাকা পর্যন্ত আয় হয়। ছাতা মেরামত করতে আসা উপজেলার উত্তর দুরাকুটি পশ্চিমপাড়া গ্রামের ষাটোর্ধ্ব মমতাজ আলী জানান,একসময় দল বেঁধে জীবিকার তাগিদে ফরিদপুর, মাদারীপুর জেলার ছাতার কারিগরিরা আমাদের এলাকায় এসে বাসাভাড়া নিয়ে পুরো বর্ষাকাল কাটিয়ে আয় রোজগার করে চলে যেত। সেই ছাতার কারিগরদের আর চোখে পড়ে না।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2024 DailySaraBangla24
Design & Developed BY Hostitbd.Com