শনিবার, ১৩ Jul ২০২৪, ০৬:১৩ অপরাহ্ন

News Headline :
রনি শেখের পাবনা জেলা ছাত্রদলের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক পদ থেকে অব্যহতি পাবনা ঈশ্বরদীতে বলৎকারে ব্যার্থ হয়ে শিশুকে গলাটিপে হত্যা আটক ১ পাবনা সদর উপজেলা পরিষদের প্রথম সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত শিবপুরে জাতীয় পুষ্টি সপ্তাহ উদ্বোধন রাজশাহীতে কোরবানিযোগ্য পশু সাড়ে ৪ লাখের বেশি দাম চড়া হবে নালিতাবাড়ী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দুই ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী নারী পাবনার সুজানগরে আনারস প্রার্থীর ভোট না করায় মোটরসাইকেল সমর্থকদের বাড়িতে হামলা ও ভাংচুর লুটপাট পাবনা গণপূর্ত অধিদপ্তর কয়েককোটি টাকার বিনিময়ে ২য় দরদাতা বালিশকান্ডের হোতাকে কাজ দেওয়ার অভিযোগ র‌্যাব কুষ্টিয়া ক্যাম্প এর অভিযানে ১টি দেশীয় ওয়ান শুটারগান উদ্ধার গাজীপুরে তিন উপজেলায় নির্বাচিত চেয়ারম্যানরা হলেন

পশ্চিম রেলে যুক্ত হচ্ছে ৪০টি নয়া ইঞ্জিন

Reading Time: 2 minutes

মাসুদ রানা রাব্বানী, রাজশাহী:
রেলওয়ের পশ্চিমাঞ্চলে যুক্ত হচ্ছে ৪০টি লোকোমোটিভ (ইঞ্জিন)। সবগুলোই আনা হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র থেকে। ইতোমধ্যে ৮টি ইঞ্জিন দেশে এসে পৌঁছেছে। আরও চার দফায় ৩২টি ইঞ্জিন আসবে।
পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের চিফ মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার কুদরত-ই খুদা বলেন, পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়েতে শুধু ব্রডগেজ (বিজি) লোকোমোটিভ চলে। এগুলোর সংখ্যা ৯২টি। এরমধ্যে ৪৩টিই মেয়াদোত্তীর্ণ। এসব ইঞ্জিনের আয়ুষ্কাল ২০ বছর। কিন্তু ৪০-৫০ বছরও বয়স হয়ে গেছে কোন কোন ইঞ্জিনের। মেয়াদোত্তীর্ণ ৪৭ শতাংশ ইঞ্জিনের মধ্যে ১৭টির বয়স ৫০ বছরের বেশি। এছাড়া ১৪টি ৪০ বছরের বেশি এবং ১২টি ৩০ বছরের বেশি পুরনো। অন্য ৪৯টি ইঞ্জিনের বয়স ২০ বছরের কম। এগুলো ভালো আছে।
রেল কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, মেয়াদোত্তীর্ণ ইঞ্জিনের পরিচালন ব্যয় অনেক বেশি। চলতে চলতে হঠাৎ ট্র্যাকেই ইঞ্জিন বন্ধ হয়ে যায়। এতে ভোগান্তি হয় যাত্রীদের। তাছাড়া পুরনো এসব ইঞ্জিনের কোন যন্ত্রাংশ নষ্ট হয়ে গেলে তা খুঁজে পাওয়া যায় না। তাই রেলের প্রকৌশলীদেরই স্থানীয়ভাবে যন্ত্রাংশ তৈরি করতে হয়। কিন্তু তা আসলের মতো কাজ করে না। এসব ভোগান্তি দূর করতেই ৪০টি ইঞ্জিন কেনা হচ্ছে।
এসব বিষয় বিবেচনায় নিয়ে ২০১৯ সালের জানুয়ারিতে মার্কিন-ভিত্তিক প্রতিষ্ঠান প্রগ্রেস রেল লোকোমোটিভ ইনকরপোরেশনের সঙ্গে ৪০টি নতুন বিজি ইঞ্জিন কেনার জন্য চুক্তি করে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি) ও বাংলাদেশ সরকারের যৌথ অর্থায়নে ইঞ্জিনগুলো কেনা হচ্ছে। প্রতিটি ইঞ্জিনের দাম ২৮ কোটি ৩৯ লাখ টাকা। মোট ৪০টি ইঞ্জিনের দাম ১ হাজার ১২৩ কোটি টাকা।
‘বাংলাদেশ রেলওয়ের রোলিং স্টক অপারেশন উন্নয়ন (রোলিং স্টক সংগ্রহ)’ প্রকল্পে ইঞ্জিনগুলো কেনা হচ্ছে। এসব ব্রডগেজ ডিজেল ইলেকট্রিক (ডিই) ইঞ্জিনগুলোর ক্ষমতা ৩ হাজার ২৫০ বিএইচপি হর্সপাওয়ার। এগুলো ঘণ্টায় ১৩০ কিলোমিটার গতিতে চলতে সক্ষম। আর প্রতিটি ইঞ্জিনের এক্সেল লোড ১৮ দশমিক ৮ টন। ইঞ্জিন ২৪ থেকে ৩৬ মাসের মধ্যে সরবরাহ করার কথা। এরমধ্যে গত মার্চে দেশে এসেছে ৮টি। দ্বিতীয় চালানে আরও ৮টি আসবে আসছে ডিসেম্বরে। প্রকল্প পরিচালক মিজানুর রহমান বলেন, ‘জাহাজে করে ৮টি ইঞ্জিন এসে চট্টগ্রামে আছে। কিন্তু করোনার কারণে আমেরিকা থেকে প্রকৌশলীরা আসেননি। আশা করি, তাঁরা একমাসের মধ্যে আসবেন এবং তারপর ইঞ্জিনগুলো পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়েতে যুক্ত হবে। এ প্রকল্পের মেয়াদ আগামী বছরের জুন পর্যন্ত। সেই সময়ের মধ্যে অন্য ৩২টি ইঞ্জিনও চলে আসবে বলে আমরা খুবই আশাবাদী।’

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2024 DailySaraBangla24
Design & Developed BY Hostitbd.Com