শনিবার, ২২ Jun ২০২৪, ০৮:৩৭ পূর্বাহ্ন

News Headline :
শিবপুরে জাতীয় পুষ্টি সপ্তাহ উদ্বোধন রাজশাহীতে কোরবানিযোগ্য পশু সাড়ে ৪ লাখের বেশি দাম চড়া হবে নালিতাবাড়ী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দুই ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী নারী পাবনার সুজানগরে আনারস প্রার্থীর ভোট না করায় মোটরসাইকেল সমর্থকদের বাড়িতে হামলা ও ভাংচুর লুটপাট পাবনা গণপূর্ত অধিদপ্তর কয়েককোটি টাকার বিনিময়ে ২য় দরদাতা বালিশকান্ডের হোতাকে কাজ দেওয়ার অভিযোগ র‌্যাব কুষ্টিয়া ক্যাম্প এর অভিযানে ১টি দেশীয় ওয়ান শুটারগান উদ্ধার গাজীপুরে তিন উপজেলায় নির্বাচিত চেয়ারম্যানরা হলেন পবায় সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি গ্রেফতার পাবনায় অগ্রনী ব্যাংক কাশিনাথপুর শাখার ভোল্ট থেকে ১০কোটি টাকা লোপাট আটক ৩ জড়িত উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ পাবনার ঈশ্বরদীতে সর্বোচ্চ ৪২.৪ ডিগ্রি তাপমাত্রার রেকর্ড

সৌদিতে আগুনে নিহতদের চারজনই রাজশাহী,শোকের মাতমে গ্রাম

Reading Time: 2 minutes

মাসুদ রানা রাব্বানী,রাজশাহী:
সৌদি আরবে আগুনে পুড়ে মারা যাওয়া নয়জনের মধ্যে চারজনেরই বাড়ি রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার তিনজনের বাড়ি ঝিকড়া ইউনিয়নে এবং অন্য জনের যোগিপাড়া ইউনিয়নে। নিহতেরা হলেন বারইপাড়া গ্রামের রুবেল হোসনেকে (৩২), সাজেদুল ইসলাম (৪৫), রুবেল আলী (২৭) ও বড়মাধাইমুড়ি গ্রামের ফিরোজ আলী সরদার (৩৮)। তাদের বাড়িতে চলছে শোকের মাতম।শুক্রবার সৌদি সময় বিকেল চারটায় রাজধানী রিয়াদ থেকে ৩৫০ কিলোমিটার পূর্বে আল আহসা শহরের হুফুফ ইন্ড্রাস্ট্রিয়াল সিটি এলাকার এক সোফা তৈরির কারখানায় অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে।
নিহত রুবেল হোসেনের বাবা জফির উদ্দিন ছেলেকে হারিয়ে অস্বাভাবিক হয়ে গেছেন। এই দুর্ঘটনা মানতেই পারছেন না। তিনি বলেন, গতকাল শুক্রবার তারা মৃত্যুর খবর পেয়েছিলেন। তবে নিশ্চিত হতে পারেননি।আজ শনিবার সকালে সেখানে থেকে ফোন করে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে। নিহতের স্ত্রী ও সাজেদুল ইসলাম আট বছর ধরে সৌদি আরবে আছেন। তিনিও মারা গেছেন। তারা এক সঙ্গে থাকতেন। সাজেদুলের স্ত্রী রুপা ও মেয়ে সাহিনা বাকরুদাধ হয়ে পড়েছে।
এদের হাত ধরে একই কোম্পানিতে চাকরি নিয়েছিলেন একই গ্রামের শাহাদত হোসেনের ছেলে রুবেল আলী (২৭)। সাত মাস আগে তিনি সৌদি আরবে পাড়ি জমিয়েছিলেন। এর মধ্যে লাশ হলেন তিনি।উপজেলার যোগিপাড়া ইউনিয়নের বড় মাধাইমুড়ি গ্রামের ফিরোজ আলী সরদার (৩৯) ছয় বছর আগে গিয়েছিলেন সৌদি আরবে। বাবা আনিছার রহমান বলেন, ছেলে কিছু টাকা জমিয়ে এবং বিভিন্ন এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে সৌদি আরবে গিয়েছিলেন।স্থানীয় ইউপি সদস্য মোস্তাক আহম্মেদ বলেন, ছেলেটি খুবই ভদ্র ছিল। মাত্র দুই বছর আগে গিয়ে সেখানে ওই কারখানায় চাকরি নিয়েছেন। তাঁর এক শিশু ছেলে ও মেয়ে রয়েছে। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষে পরিবারগুলোর খোঁজ খবর নেওয়া হচ্ছে।এদিকে খবর পাওয়ার পর রাজশাহী জেলা প্রশাসকের নির্দেশে বাগমারা উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা নিহত শ্রমিকদের বাড়িতে যান। তাদের খোঁজ -খবর নেওয়া ছাড়াও সব ধরণের সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন। এছাড়া জেলা প্রশাসক শামীম আহমেদ রাতেই ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে শোকসন্তাপ্ত পরিবারকে শান্তনাসহ অর্থনৈতিক সহযোগীতা দিয়েছেন বলে উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) সুমন চৌধুরী জানান।এ সময় উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি)’র সঙ্গে উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা রাজিব আল রানা ছিলেন। তারা প্রত্যেক পরিবারের সাথে কথা বলেন এবং নিহতদের পরিবারগুলোকে সহযোগিতা করা হবে বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2024 DailySaraBangla24
Design & Developed BY Hostitbd.Com