সোমবার, ১৫ Jul ২০২৪, ১২:৩৬ অপরাহ্ন

News Headline :
রনি শেখের পাবনা জেলা ছাত্রদলের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক পদ থেকে অব্যহতি পাবনা ঈশ্বরদীতে বলৎকারে ব্যার্থ হয়ে শিশুকে গলাটিপে হত্যা আটক ১ পাবনা সদর উপজেলা পরিষদের প্রথম সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত শিবপুরে জাতীয় পুষ্টি সপ্তাহ উদ্বোধন রাজশাহীতে কোরবানিযোগ্য পশু সাড়ে ৪ লাখের বেশি দাম চড়া হবে নালিতাবাড়ী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দুই ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী নারী পাবনার সুজানগরে আনারস প্রার্থীর ভোট না করায় মোটরসাইকেল সমর্থকদের বাড়িতে হামলা ও ভাংচুর লুটপাট পাবনা গণপূর্ত অধিদপ্তর কয়েককোটি টাকার বিনিময়ে ২য় দরদাতা বালিশকান্ডের হোতাকে কাজ দেওয়ার অভিযোগ র‌্যাব কুষ্টিয়া ক্যাম্প এর অভিযানে ১টি দেশীয় ওয়ান শুটারগান উদ্ধার গাজীপুরে তিন উপজেলায় নির্বাচিত চেয়ারম্যানরা হলেন

ঝালকাঠিতে নির্বাচনপরবর্তী সহিংসতায় ছাত্রলীগ নেতা নিহত

Reading Time: 2 minutes

নিজস্ব প্রতিবেদক:

ঝালকাঠির কাঠালিয়া উপজেলায় ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনপরবর্তী সহিংসতায় ছাত্রলীগ নেতা নিহত হয়েছেন। এতে আহত হয়েছেন অন্তত সাতজন। গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় উপজেলার আমুয়া ইউনিয়নের বিল ছোনাউটা গ্রামের কেরাত আলী খান মাদ্রাসাসংলগ্ন বাজারে দুই সদস্য প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়।

নিহত ছাত্রলীগ নেতার নাম মো. আরিফুল ইসলাম (২০)। তিনি আমুয়া ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। বিল ছোনাউটা গ্রামের মো. শাহ আলম আকন ওরফে লাল মিয়ার ছেলে আরিফুল। তাঁর পরিবারের অভিযোগ, তাঁকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। আহত ব্যক্তিরা হলেন নিহত আরিফুল ইসলামের বাবা মো. শাহ আলম আকন (৬০), মা শাহানাজ পারভীন (৫০), ভাই শরিফুল ইসলাম (২৬), চাচাতো ভাই ইব্রাহীম আকন (২৫), চাচা সোহরাব আকন (৫৫) এবং প্রতিপক্ষের মালেক সিকদার (৬০) ও অলিম সিকদার (৬০)।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ২১ জুন আমুয়া ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের (বিল ছোনাউটা) ইউপি সদস্য পদে মজিবর সিকদার টিউবওয়েল প্রতীক নিয়ে ও মো. জিয়াউল ফারুক ফুটবল প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। জিয়াউল ফারুকের সমর্থক ছিলেন আরিফুল ইসলাম। গতকাল সন্ধ্যা ছয়টার দিকে মো. হোসেন নামের আরিফুল ইসলামের এক চাচাতো ভাইকে ছানাউটা গ্রামের কেরাত আলী খান মাদ্রাসাসংলগ্ন বাজারে একটি দোকানে মজিবর সিকদারের লোকজন আটকে রাখেন। এমন খবর পেয়ে ওই বাজারে অবস্থিত একটি অফিস ঘরে জড়ো হন আরিফুল ইসলাম, তাঁর বাবা মো. শাহ আলম আকন, মা শাহানাজ পারভীন ও ভাই শরিফুল ইসলাম। সন্ধ্যা সাতটার দিকে মজিবর সিকদারের ৪০ থেকে ৫০ জন সমর্থক অতর্কিত ওই অফিস ঘরে হামলা চালান। এ সময় আরিফুল ইসলাম ও তাঁর পরিবারের সদস্য কুপিয়ে জখম করা হয়। পরে মজিবর সিকদার ও জিয়াউল ফারুকের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে অন্তত আহত হয়েছেন সাতজন। তাঁদের আমুয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হয়। আশঙ্কাজনক অবস্থায় আরিফুলকে বরিশালের শের–ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে রাত সাড়ে ১০টার দিকে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

ঘটনার পর থেকে টিউবওয়েল প্রতীকের মজিবর সিকদার ও তাঁর সমর্থকেরা পলাতক বলে জানান কাঠালিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) পুলক চন্দ্র রায়। তিনি বলেন, এ ঘটনায় আরিফের বাবা শাহ আলম আকন একটু সুস্থ হলেই একটি হত্যা মামলা করবেন। লাশের ময়নাতদন্তের প্রস্তুতি চলছে।

এ বিষয়ে মো. জিয়াউল ফারুক বলেন, ‘টিউবওয়েল প্রতীকের মজিবর সিকদারের ইন্ধনে তাঁর সমর্থকেরা আমার সমর্থকদের ওপর হামলা চালিয়ে আরিফুলকে কুপিয়ে হত্যা করেছে।’

অভিযোগের বিষয়ে মজিবর সিকদার মুঠোফোনে দাবি করেন, ‘এ হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে আমি কিছু জানি না। আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দেওয়া হচ্ছে।’

মাথায় প্রচণ্ড আঘাত ও প্রচুর রক্তক্ষরণের কারণে আরিফুল ইসলামের মৃত্যু হয়েছে বলে জানান আমুয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা তাপস তালুকদার।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2024 DailySaraBangla24
Design & Developed BY Hostitbd.Com