সোমবার, ১৫ Jul ২০২৪, ১১:৪২ অপরাহ্ন

News Headline :
রনি শেখের পাবনা জেলা ছাত্রদলের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক পদ থেকে অব্যহতি পাবনা ঈশ্বরদীতে বলৎকারে ব্যার্থ হয়ে শিশুকে গলাটিপে হত্যা আটক ১ পাবনা সদর উপজেলা পরিষদের প্রথম সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত শিবপুরে জাতীয় পুষ্টি সপ্তাহ উদ্বোধন রাজশাহীতে কোরবানিযোগ্য পশু সাড়ে ৪ লাখের বেশি দাম চড়া হবে নালিতাবাড়ী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দুই ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী নারী পাবনার সুজানগরে আনারস প্রার্থীর ভোট না করায় মোটরসাইকেল সমর্থকদের বাড়িতে হামলা ও ভাংচুর লুটপাট পাবনা গণপূর্ত অধিদপ্তর কয়েককোটি টাকার বিনিময়ে ২য় দরদাতা বালিশকান্ডের হোতাকে কাজ দেওয়ার অভিযোগ র‌্যাব কুষ্টিয়া ক্যাম্প এর অভিযানে ১টি দেশীয় ওয়ান শুটারগান উদ্ধার গাজীপুরে তিন উপজেলায় নির্বাচিত চেয়ারম্যানরা হলেন

বগুড়ার বাঙালী নদীর ভাঙ্গনের কবলে ১০ টি গ্রাম

Reading Time: 2 minutes

মোঃ হেলাল উদ্দিন সরকার, ধুনট বগুড়া :
বগুড়া শেরপরে, উজান থেকে নেমে আসা পাহারী ঢলে বগুড়ার শেরপুরে বাঙালী নদীতে পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং তীব্র স্রোতের কারণে ভাঙ্গন এর কবলে পড়েছে নদী তীরবর্তী এলাকা, ইতিমধ্যে অনেক বাড়িঘর বিলীন হয়ে গেছে নদীগর্ভে। উপজেলার বাঙ্গালী নদীর তীরবর্তী এলাকা ঝাঁজর, নলডিঙ্গিপাড়া, চক খানপুর, গজারিয়া, বড়ইতলী, চকধলী, চককল্যানী, কল্যানী, আওলাকান্দি, বিনোদপুর, জোড়গাছা, সুঘাট মধ্যভাগ, সহ নদী তীরের অনেক এলাকার ফসলি জমি ও ঘরবাড়ী এখন নদী গর্ভে বিলীনের পথে । উপজেলার সুঘাট ইউনিয়নের চক কল্যানী গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, এই নদী ভাঙ্গনের দৃশ্য। নদী পাড়ের বসবাসরত লোকজন নদীর তীরের ভাঙ্গন কবলের মুখে পড়ে শঙ্কিত হয়ে পড়েছে । নদী ভাঙ্গনের কারণে জীবন বাঁচাতে এসব ঘরবাড়ী সরানোর কাজে ব্যস্ত হয়ে এখন তারা। ইতিমধ্যে নদীর ভাঙ্গনে বেশ কিছু ঘরবাড়ি, ইবতেদায়ী মাদ্রাসা ও রাস্তাঘাট বাঙালি নদীগর্ভে বিলিন হয়ে গেছে। অথচ বাঙালি নদীর কোথাও কোন স্থায়ী বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ নির্মাণ করা হয়নি। বাঙালি নদীর ভাঙ্গনে সর্বস্ব হারানো চক কল্যানী গ্রামের নজরুল, বক্কার, ছামসুল, মজিদ, মহির উদ্দিন, মফিজ সহ অনেকেই বলেন, আমরা গত ৪ বছর যাবৎ নদী ভাঙ্গনের কবলে পড়ে বসতবাড়ি হারিয়েছি। এবারো নদী ভাঙ্গনের কবলে পড়েছি। প্রতি বছরেই নদী ভাঙ্গনের ফলে আমরা সংসারের ঘাটতি থেকে উঠতে পারছিনা। এতো পরিশ্রম করে চাষাবাদ করে যদি নদী ভাঙ্গনের কারণে ঘাটতি থেকে- না উঠতে পারি তাহলে কিভাবে আমরা চলবো। আমাদের বসতবাড়ি ও গ্রামগুলো রক্ষার জন্য সরকারের কাছে স্থায়ী বাঁধ নির্মাণের দাবি জানান নদী ভাঙ্গনের কবলে পড়া ক্ষতিগ্রস্ত মানুষেরা। বাঙালি এবং করতোয়া নদীর তীর সংরক্ষণের জন্য সম্প্রতি দরপত্র আহবান করা হলেও, শুরু হয়নি বাঁধ রক্ষার কোন কাজ। ফলে বাঙালী নদীর অব্যাহত ভাঙনে বিস্তৃীর্ণ এলাকা নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যেতে পারে বলে আশঙ্কা করে জনসাধারণ। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, বগুড়ার সোনাতলা, সারিয়াকান্দি, ধুনট ও শেরপুর উপজেলার উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া বাঙালী নদীর ১৯ কিলোমিটার এলাকায় ২২ লটে নদীর তীর সংরক্ষণ কাজ করার কথা। এছাড়াও সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে ওই নদী খনন করা হবে বলে জানাদ গেছে। এজন্য সরকারের ব্যয় হবে ৩২০ কোটি টাকা। এ কাজের জন্য বরাদ্দ পাওয়া গেছে মাত্র ১৫ কোটি টাকা। ইতিমধ্যেই বগুড়ার ঐ ৪ উপজেলায় নদীর তীর সংরক্ষণের জন্য সিসি ব্লক নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে। এখন পর্যন্ত শেরপুর উপজেলায় নদী খননের কাজ শুরু হয়নি বলে সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে। এদিকে বাঙালী নদীর অব্যাহত ভাঙনে চলতি বর্ষা মৌসুমে শেরপুর উপজেলার বিস্তৃীর্ণ এলাকা নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যেতে পারে। এ বিষয়ে বগুড়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ মাহবুবুর রহমান জানান, বগুড়ার অংশে ১৯ কিলোমিটার বাঙালী নদী ভাঙনরোধে তীর সংরক্ষণ ও নদী খননের কাজ বগুড়ার ধুনট উপজেলা থেকে শুরু হয়েছে। নদী খননের কাজ হবে আগে। সেনাবাহিনী নদী খননের কাজ তদারকি করবেন। নদীর তীর সংরক্ষণের কাজের জন্য ঠিকাদার নিযুক্ত করা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট ঠিকাদাররা সিসি ব্লক তৈরির কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। বন্যার পানি নেমে গেলেই খননকাজ বা তীর সংরক্ষণ কাজ শুরু হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2024 DailySaraBangla24
Design & Developed BY Hostitbd.Com