সোমবার, ২২ Jul ২০২৪, ১০:১৬ অপরাহ্ন

News Headline :
রনি শেখের পাবনা জেলা ছাত্রদলের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক পদ থেকে অব্যহতি পাবনা ঈশ্বরদীতে বলৎকারে ব্যার্থ হয়ে শিশুকে গলাটিপে হত্যা আটক ১ পাবনা সদর উপজেলা পরিষদের প্রথম সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত শিবপুরে জাতীয় পুষ্টি সপ্তাহ উদ্বোধন রাজশাহীতে কোরবানিযোগ্য পশু সাড়ে ৪ লাখের বেশি দাম চড়া হবে নালিতাবাড়ী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দুই ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী নারী পাবনার সুজানগরে আনারস প্রার্থীর ভোট না করায় মোটরসাইকেল সমর্থকদের বাড়িতে হামলা ও ভাংচুর লুটপাট পাবনা গণপূর্ত অধিদপ্তর কয়েককোটি টাকার বিনিময়ে ২য় দরদাতা বালিশকান্ডের হোতাকে কাজ দেওয়ার অভিযোগ র‌্যাব কুষ্টিয়া ক্যাম্প এর অভিযানে ১টি দেশীয় ওয়ান শুটারগান উদ্ধার গাজীপুরে তিন উপজেলায় নির্বাচিত চেয়ারম্যানরা হলেন

বাগমারার কাজি খাদেমুলের বিরুদ্ধে অনিয়ম ও দুর্নিতির অভিযোগ

Reading Time: 3 minutes

মাসুদ রানা রাব্বানী, রাজশাহী:

রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার শুভডাঙ্গা ইউনিয়নের নিকাহ রেজিস্ট্রার খাদেমুল ইসলাম তাঁর অধিক্ষেত্রের বাইরে বিবাহ নিবন্ধন করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। ফলে বাল্য বিবাহ ও ভুয়া নিকাহ রেজিস্ট্রার বৃদ্ধি পাচ্ছে। এমন অভিযোগের ভিত্তিতে তাঁর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য রাজশাহী জেলা প্রশাসক মোঃ আব্দুল জলিল বরাবর একটি আবেদন দিয়েছেন শাহীমুল ইসলাম ডালিম। তিনি, রাজশাহী বাগমারার খালিমপুর গ্রামের মোঃ নূরুল ইসলামের ছেলে।
অভিযোগ সুত্রে জানাগেছে, জেলা রেজিস্ট্রার ও সাব-রেজিস্ট্রার সহোযোগিতায় রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার শুভডাঙ্গা ইউনিয়নের নিকাহ রেজিস্ট্রার খাদেমুল ইসলাম তাঁর অধিক্ষেত্রের বাইরে (১১নং) গনিপুর ইউনিয়নে কাজি মোঃ হাবিবুর রহমান, মোঃ রবিউল ইসলাম, মোঃ মোজাম্মেল হক ছাড়াও তিনি অনেক সহকারী দ্বারা বিবাহ ও তালাক নিবন্ধন করেন এবং প্রত্যেকের নিকট অবৈধ বিবাহের ভলিউম বই আছে। প্রত্যেক সহকারীর নিকট দুইটি ভলিউম আছে একটিতে বাল্য বিবাহ রেজিস্ট্রী করে। অন্য ভলিউমে সঠিক বয়সের বিবাহ রেজিস্ট্রী করে। বাল্য বিবাহ রেজিস্ট্রী করার সময় তারা বলেন, বয়স পূর্ণ হওয়ার পর কাবিননামা পাবেন। নিকাহনামা (ফটোকপি) দেখা যায় যে, দুইবার স্বাক্ষর এবং দুইবার তারিখ। জেলা রেজিস্ট্রার নিকট ১১ নং গনিপুর ইউনিয়রে ২০২০ সালে এবং ২০২১ সালে বিবাহের সংখ্যা গোপন করে তথ্য দিয়েছেন।
একজন নিকাহ রেজিস্ট্রার একটি ভলিউম বই ব্যবহার করার বিধান থাকলেও তিনি ১১ নং গনিপুর ইউনিয়নে একাধিক বই ব্যবহার করে থাকেন। তাদের এরুপ কার্যকলাপের বাল্য বিবাহের সংখ্যা বাড়ছে এবং প্রতারণা ও হয়রানির শিকার হচ্ছে সাধারণ মানুষ। এসব অবৈধ কর্মকান্ড বন্ধের জন্য অনুরোধ জানিয়ে ৯নং শুভডাঙ্গা ইউনিয়নের নিকাহ রেজিস্ট্রার মোঃ খাদেমুল ইসলাম তাঁর অধিক্ষেত্রের বাইরে বিবাহ নিবন্ধনকারীদের লাইসেন্স বাতিল ও আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য তিনি জেলা প্রশাসকের কাছে আবেদন করেন।
বিয়ে দিবো ৫ লাখ টাকা কাবিন হবে এতে খরচ কত পড়বে ? মুঠো ফোনে জানতে চাইলে, কাজি মোঃ হাবিবুর রহমান জানান, হাজারে ১৪ টাকা ৫লাখ টাকায় খরচ পড়বে ৭ হাজার টাকা। কোন রেজিস্ট্রি খাতায় বিয়ে দেবেন? এমন প্রশ্নে জবাবে তিনি বলেন, খাদেমুল ইসলামের রেজিস্ট্রি বহিতে বিয়ে হবে। এ ব্যপারে মুঠো ফোনে জানতে চাইলে কজি মোঃ মোজাম্মেল হক ও মোঃ রবিউল ইসলাম তারা দু’জনই একই কথা বলেন এবং খাদেমুল ইসলামের রেজিস্ট্রি বহিতে বিবাহ ও নিকাহ’র কাজ করেন বলেও স্বিকার করেন। এছাড়াও খাদেমুল ইসলামের সহযোগী কাজি হিসেবে কাজ করেন, ১১নং গনিপুর ইউনিয়নের মহনগঞ্জের মোঃ আলতাফ মন্ডল, পুড়া বায়ার মোঃ আব্দুল জব্বার, হাসনিপুরের মোঃ খোরসেদ, বাসু বোয়ালিয়ার মোঃ গোলাম রাব্বানী প্রমূখ।
নিয়ম বহিভূত ভাবে একধিক ভলিয়মে বিবাহ্ রেজিস্ট্রি করার বিষয়ে নিকাহ রেজিস্ট্রার মোঃ খাদেমুল ইসলাম মুঠো ফোনে জানতে চাইলে তিনি জানান, ১১নং গনিপুর ইউনিয়নে ১৮ জুন ২০১৭ অতিরিক্ত দায়িত্ব পেয়েছেন। পরবর্তীর্তে অতিরিক্ত দায়িত্ব পাওয়ার বিষয়টি তার মনে নেই। ২০০৯ গেজেট অনুযায়ী অতিরিক্ত দায়িত্ব কতদিন করতে পারবেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, না দেখে বলতে পারবোনা। গনিপুর ইউনিয়নে তার সহকারী কতজন আছে? উত্তরে তিনি সাত জনের কথা বলেন। তার কাছে ভলিয়ম বই একাধীক নয় ১টি আছে বলে জানান। তবে একদিনে একাধীক বিয়ের হলে কিভাবে কাজ করেন? এমন প্রশ্নের উত্তর তিনি এড়িয়ে যান।
জেলা রেজিস্ট্রারের নিকট ২০২০/২১ সালে বিবাহের সংখ্যা জানতে চাইলে তিনি বলেন, জানানো হয়নি। ৬/৭জন সহকারী রাখার বিষটি জেলা রেজিস্ট্রার অবগত আছেন কি? তার কোন উত্তর দেননি তিনি। নিকাহ্ নামা কপিতে দুইটি স্বাক্ষর এবং দুইটি তারিখ আছে, কোনটা সঠিক বলে ধরে নিবো ? উত্তরে বলেন, না দেখে বলতে পারবোনা। আপনার বিরুদ্ধে সাব রেজিস্ট্রার তদন্ত করছেন কি ? উত্তরে সঠিক বলে স্বিকার করেন তিনি। এ ব্যপারে জানতে চাইলে, রাজশাহী জেলা মুসলিম নিকাহ রেজিস্ট্রার সমিতির সভাপতি কাজি মোঃ নূরুল আলম জানান, ২০০০ সালে গনিপুর, শ্রীপুর ও হামিরকুৎসা তিনটি ইউনিয়নের দায়িত্বে ছিলেন কাজি মোঃ আব্দুল জাব্বার। তিনটি ইউনিয়নে আইন-বিচার সংসদ বিষয়ক মন্ত্রানালয় ৩জনকে নিকাহ রেজিস্ট্রার প্রদান করেন। এর মধ্যে মোঃ আব্দুল জাব্বার ২০০৬ সালে মহামান্য হাইকোর্টে রিট পিটিশন করেন। মামলা নং-১৪৮২/২০০৬। আইন-বিচার সংসদ বিষয়ক মন্ত্রানালয়ে মোঃ আব্দুল জাব্বার ৩টি ইউনিয়নের বিষয়ে আবেদন করিলে সিনিয়র সহকারী সচিব, এএইচএম শামসুল আরেফিন গত ইং ২৮/০৫/২০০৬ সালে ৩জন নিকাহ রেজিস্ট্রারের বিবাহ তালাক কার্যক্রম রেজিস্ট্রি না করার জন্য নির্দেশ প্রদান করেন। এরপর গত ০১/০৬/২০০৬ তারিখে জেলা রেজিস্ট্রার আব্দুর রউফ সরকার ৩জন নিকাহ রেজিস্ট্রারের বিবাহ তালাক কার্যক্রম রেজিস্ট্রি না করার জন্য নির্দেশ প্রদান করেন। তারপরও মোঃ খাদেমুল ইসলাম ১১নং গরিপুর ইউনিয়নে তাঁর অধিক্ষেত্রের বাইরে বিবাহ ও তালাক নিবন্ধন অব্যাহত রেখেছেন। তিনি বর্তমানে ৪/৫জন সহকারী দ্বারা কার্যক্রম চালাচ্ছেন। মুসলিম পারিবারিক আইন অনুযায়ী তার লাইসিন্স বাতিল যোগ্য। তিনি আরও বলেন, আব্দুল জাব্বার জেলা রেজিস্ট্রারের নিকট মোঃ খাদেমুল ইসলাম ও রেজাউল করিম নিকাহ রেজিস্ট্রারের বিরুদ্ধে অভিযোগ দিলে জেলা রেজিস্ট্রার সাব-রেজিস্ট্রার ভবানীগঞ্জ মোঃ মাসুদ রানার নিকট তদন্তভার অর্পন করেন। কিন্তু সেই তদন্তের কার্যকর কোন ব্যবস্থা গ্রহণ হয়নি আজও।
এ ব্যাপারে বাগমারা উপজলার সাব রেজিস্ট্রার মাসুদ রানা জানান, আমি রাজশাহীতে নতুন এসেছি। উর্দ্ধতন কর্মকর্তা সার্বিক তদন্তের দায় ভার আমাকে দিয়েছেন। তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত কিছু বলতে পারছিনা। তবে কাজিদের তার সহযোগীতার বিষয়টি অস্বিকার করেন।
রাজশাহী জেলা রেজিষ্ট্রার মতিউর রহমানের সাথে মোবাইল ফোনে বিষয়গুলো সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি সরাসরি অফিসে যোগাযোগ করার অনুরোধ করেন।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2024 DailySaraBangla24
Design & Developed BY Hostitbd.Com